Breaking News
Home / International / উন্নত খাকি-ক্যাম্বেল জাতের হাঁস পালনে আয় প্রতি বছর ৫ লাখ টাকা

উন্নত খাকি-ক্যাম্বেল জাতের হাঁস পালনে আয় প্রতি বছর ৫ লাখ টাকা

অনেক লাভজনক একটা প্রকল্প হোল হাঁস পালন। এই হাঁস পালন করে বহু তরুণ যুবক- যুবতী তাদের বেকারত্ব ঘুচিয়েছে। আসুন আজ জেনে নেই কেন হাঁস পালন করবেন?

০১. উৎপাদন খরচের তুলনায় হাঁসের ডিমের দাম ও চাহিদা মুরগীর ডিমের চাইতে অনেক বেশী।
০২. অন্যান্য পাখি যেমন মুরগী, কোয়েল, কবুতর পালনের তুলনায় হাঁস পালন খরচ তুলনামুলক অনেক কম।

০৩. হাঁস সাধারনত ক্ষেত খামার, খাল বিল থেকে খাবার সংগ্রহ করে বিদায় খাবার খরচ অনেক কম লাগে।
০৪. হাঁসের ঘর অল্প খরচে তৈরি করা য়ায় ( কাঠ বাশ, টিন এমন কি ছন দিয়েও ঘর তৈরি করা য়ায়।
০৫. হাঁস পালনে লোকবল কম লাগে, অন্য কাজের পাশা পাশি অথবা পড়াশোনার পাশাপাশি হাঁস পালন করা যায়।

কোন জাতের হাঁস পালনে লাভ বেশী?

বাংলাদেশে বিভিন্ন জাতের হাঁস রয়েছে, যেমন: খাকি-ক্যাম্বেল, জিনডিং, ইন্ডিয়ান রানার, পিকিন এবং বেইজিং এছারা আরো দেশি জাতের বিভিন্ন হাঁস রয়েছে।

খাকি-ক্যাম্বেল, জিনডিং: এই জাতের হাঁস সবসময় খাল বিল নদীতে থাকে ও খাবার সংগ্রহ করে, তাই বাজার থেকে রেডি ফিড খুব কম কেনা লাগে এবং এগুলো বছরে প্রায় ২৮০-৩২০ টি ডিম দেয় বলে এই জাতের হাঁস পালনই বর্তমানে বাংলাদেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং লাভজনক।

হাঁসের বাচ্ছা কোথায় পাবেন ?

বাংলাদেশে হাঁসের বাচ্চা উৎপাদন করে এমন হ্যাচারী তেমন খুব একটা দেখা যায়না।
ইদানিং ময়মনসিংহের কিশোরগন্জে কিছু হ্যাচারী গড়ে উঠেছে।

এমনই একটি হ্যাচারীর ঠিকানা দেওয়া হল, আমার জানা মতে তারা সারা বাংলাদেশে অত্যান্ত যত্ন সহকারে হাঁসের বাচ্চা সরবরাহ করে থাকে। এবং বাচ্চা পালনে সার্বিক সহায়তা করে থাকে। যেমন- বাচ্চার টিকা ও বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধের সার্বিক গাইড লাইন দিয়ে থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *