Breaking News
Home / Health / এই ৭টি সাধারন লক্ষণ দেখে বোঝা যাবে আপনার শরীরে ফলিক অ্যাসিডের অভাব রয়েছে!

এই ৭টি সাধারন লক্ষণ দেখে বোঝা যাবে আপনার শরীরে ফলিক অ্যাসিডের অভাব রয়েছে!

যুক্তরাষ্ট্রের ইন্সটিটিউট অব মেডিসিনের ভাষ্য মতে, প্রতিদিন একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের ৪০০ মাইক্রো’গ্রাম ফলিক অ্যাসিড প্রয়োজন। এই উপাদানটি ফলেট বা ভিটামিন বি৯ নামেও পরিচিত, যা দে’হের

জন্য খুব প্রয়োজনীয়। এটি দে’হের ক্ষ’তিগ্রস্ত ডিএনএ সারিয়ে তোলে এবং লোহিত র’ক্ত কণিকা উৎপাদনে ভূমিকা রাখে। যদি আপনার দে’হে ফলিক অ্যাসিডের অভাব দেখা দেয় তাহলে আপনার র’ক্তস্বল্পতাও দেখা দিতে পারে।

আম’রা ফলিক অ্যাসিডের অভাবে দে’হে যেসব উপস’র্গ দেখা দেয় তার একটি তালিকা তৈরি করেছি, যেন আপনি এই লক্ষণগুলো দেখে সত’র্ক হতে পারেন।

৭. স্নায়ুবিক স’মস্যা: ফলিক অ্যাসিড কে’ন্দ্রীয় স্নায়ু তন্ত্রের জন্য খুব গু’রুত্বপূর্ণ একটি উপাদান। এর অভাবে আপনার বিষণ্ণতা, চিন্তার অক্ষ’মতা, মনোযোগের অভাব এবং বির’ক্তি দেখা দিতে পারে। যদি সঠিক

চিকিৎ’সা এবং এর অভাব পূরণ না করা হয় তাহলে ডিমেনশিয়া বা আলঝাইমা’র’স ডিজিজ হওয়ার আশ’ঙ্কা তৈরি হয়।

৬. শ’রীর ব্য’থা: ফলেটের অভাবে সৃষ্ট র’ক্তস্বল্পতার জটিল অব’স্থায় মস্তিষ্ক তার চা’হিদার চেয়ে অনেক কম অক্সিজেন পায়। ফলে মস্তিষ্কের ধমনীগুলো ফুলে যেতে শুরু করে এবং আপনার মাথাব্য’থা শুরু হয়। মস্তিষ্কই শুধু নয়,

অক্সিজে’নের অভাবে ভুগতে পারে দে’হের অন্যান্য অ’ঙ্গ প্রত্যঙ্গও। মাথাব্য’থার মত শ’রীরের অন্যান্য জায়গায়ও তখন ব্য’থা ক’রতে শুরু করে। বিশেষ করে বুক এবং পায়ে প্র’চণ্ড ব্য’থা হতে পারে।

৫. বিবর্ণ ত্বক: লোহিত র’ক্তকণিকার হিমোগ্লোবিন নামক প্রোটিনগুলো ফু’সফুস থেকে সারা দে’হের টিস্যুতে অক্সিজেন সরবরাহের কাজ করে। যখন দে’হে ফলেটের অভাব দেখা দেয় তখন দে’হের অভ্যন্তরীণ অ’ঙ্গাদিতে অক্সিজেন

সরবরাহের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ লোহিত র’ক্তকণিকা (এবং হিমোগ্লোবিন) পাবেন না। এর ফলে আপনার শ’রীরে দু’র্বলতা ভর করবে, হাত ও পায়ে অসাড় বোধ হবে, এবং ত্বক বিবর্ণ হবে।

৪. শ্বা’সকষ্ট: স্বা’ভাবিক কাজ ক’র্ম ক’রতেই হাঁপিয়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ দে’হে পর্যাপ্ত লোহিত র’ক্ত কণিকার অভাব দেখা দেওয়া। এই উপস’র্গের সাথে হৃৎপিণ্ডের গতি বেড়ে যাওয়া এবং মাথা ঘোরানো বা অজ্ঞান হওয়ার মতো গু’রুতর স’মস্যাও দেখা দিতে পারে। আর এর পিছনে কে কাজ করছে তা এতক্ষণে নিশ্চয়ই জে’নে গেছেন।

৩. হ’জমে স’মস্যা: খাওয়ার পরপর বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া, মাথা ঘোরা, পে’টব্য’থা এবং ডায়রিয়া হওয়া ফলিক অ্যাসিডে অভাবকে নি’র্দেশ করে। অবস্থা জটিল রূপ ধারণ করলে লক্ষণীয় ভাবে ওজন কমা’র পাশাপাশি অ্যানরেক্সিয়ার মতো ক’ঠিন রো’গে আক্রা’ন্ত হওয়ার ঝুঁ’কি তৈরি হয়।

২. মুখে ব্য’থা এবং জিহ্বা ফুলে যাওয়া: এই রকম অবস্থা তখনই তৈরি হয় যখন দে’হে মা’রাত্মক ভাবে ফলেটের অভাব দেখা দেয়, যা হালকা ভাবে নেওয়া উচিৎ নয়। এর ফলে আপনার জিহ্বা ফুলে লাল হয়ে

যেতে পারে, বিশেষ করে জিহ্বার চোখা অংশ এবং দুই ধার বরাবর। লোহিত র’ক্তকণিকা কমে যাওয়ার ফলে আপনার জিহ্বায় ব্য’থাও হতে পারে অথবা জিহ্বায় ঘা এবং স্টোমাটাইটিস হতে দেখা যায়।

১. রুচি কমে যায়: কিছু গবেষণায় জা’না যায়, ফলিক অ্যাসিডের অভাবে মুখে ঘা হওয়ার পাশাপাশি মুখের রুচি ন’ষ্ট হয়ে যায়। ফলে খাবারের স্বাদ পেতে স’মস্যা হয়। এর অভাবে সৃষ্ট ব্য’থার কারণে জিহ্বার স্বাদ রিসেপ্টর প্যাপিলাই স্নায়ুর মাধ্যমে মস্তিষ্কে স্বাদের অনুভূতি পাঠাতে পারে না। ফলে খাওয়া দাওয়া কমে যায় এবং ওজন কমে যেতে শুরু করে।

বোনাস: কীভাবে ফলেটের অভাব পূরণ করবেন: সবচেয়ে সহজ উপায় হলো খাবারের মাধ্যমে এই স’মস্যার সমাধান করা। শ’রীরের জন্য পর্যাপ্ত ফলেট পেতে আপনাকে গাঁঢ় সবুজ শাকসবজি যেমন, ব্রোকলি, পালংশাক, অ্যাসপারাগাস ইত্যাদি প্রচুর পরিমাণে খেতে হবে। পাশাপাশি টক ফল, সিমের বিচি, মাশরুম এবং শস্যদানা নিয়মিত খেতে হবে।

যদি আপনি এই স’মস্যা গুলো আপনার মধ্যে দে’খতে পান তাহলে দ্রুত ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে যথাযথ পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে নি’শ্চিত হতে হবে। তারপর আপনার খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের মাধ্যমে নিজেকে সু’স্থ করে তোলার চেষ্টা শুরু ক’রতে হবে।

Check Also

লজ্জাবতী গাছের ঔষধি গুণাবলী জেনে অবাক হবেন!

লজ্জাবতী। আবার কেউ কেউ এক বলেন লাজুক লতা। পরিচয় বর্ষজীবি গুল্ম আগাছা বা ঔষধি গাছ। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *