Breaking News
Home / Health / তৈরি হলো এমন ওষুধ, যা ৯৯.৯ শতাংশ করোনাকে করে দেবে ধ্বংস, দাবি বিজ্ঞানীদের

তৈরি হলো এমন ওষুধ, যা ৯৯.৯ শতাংশ করোনাকে করে দেবে ধ্বংস, দাবি বিজ্ঞানীদের

দেশে ক্রমাগত বেড়েই চলেছে কোভিড। ইতিমধ্যেই আক্রান্ত হয়েছেন আড়াই কোটিরও বেশি মানুষ। করোনার এই মারাত্মক তাণ্ডবে প্রাণ হারিয়েছেন ২ লক্ষ ৭৮ হাজারেরও বেশি মানুষ। গত কয়েক দিনের লকডাউনের কারণে সংক্রমণ কিছুটা কমলেও মৃত্যুর পরিমাণ এখনো চিন্তার ভাঁজ ফেলছে চিকিৎসকদের কপালে।

গত ২৪ ঘন্টায় সমস্ত রেকর্ড ভেঙে করোনার বলি হলেন, ৪৩২৯ জন মানুষ। এর আগে সর্বাধিক মৃত্যু হয়েছিল ১২ ই মে। সংখ্যাটা ছিল ৪২০৫। তবে আজ এই রেকর্ড ভেঙে ফেলল ভারত। যদিও নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ২ লক্ষ ৬৩ হাজারের কিছু বেশি।

সংক্রমণ কিছুটা কমলেও মৃত্যু যখন রীতিমতো চিন্তা বাড়াচ্ছে তখনই সকলকে বড় উপহার দিল অস্ট্রেলিয়া। অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীদের দাবি, তাদের আবিষ্কৃত একটি থেরাপি ৯৯.৯% কোভিড পার্টিক্যালসকে মারতে সক্ষম।

শুধু তাই নয়, এই থেরাপির কারণে অনেকখানি কম হতে পারে মৃত্যুদরও। এই থেরাপির আবিষ্কার করেছেন অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড শহরের মেঞ্জিস হেলথ ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা। তাদের দাবি এই থেরাপি অনেকটা মিসাইলের মত কাজ করে। অর্থাৎ প্রথমে তার টার্গেট খুঁজে বের করে এবং তারপর তাকে সম্পূর্ণ ধ্বংস করে।

গতবছর এপ্রিল থেকেই চলছিল গবেষণাঃ এই গবেষণার সঙ্গে যুক্ত প্রফেসর নাইজেল ম্যাকমিলান বলেন,গতবছর এপ্রিল মাস থেকেই বিজ্ঞানীরা এই চিকিৎসা পদ্ধতির উপর কাজ করে আসছেন। এই অত্যাধুনিক টেকনোলজি ভাইরাসকে ক্লোন তৈরি করা থেকে আটকায়। তাই এর মাধ্যমে করোনা রোগীদের মৃত্যু অনেকখানি আটকানো যেতে পারে। বিজ্ঞানীরা এও জানান, এই থেরাপি অনেকটাই “হিটসিকিং” মিসাইলের মত কাজ করে। যা প্রথমে টার্গেটকে খুঁজে বের করে এবং তারপর তাপের মাধ্যমে তাকে ধ্বংস করে।

ডক্টর ম্যাকমিলানের মতে, এই থেরাপির মাধ্যমে ফুসফুসে বাসা বাধা কোভিড ভাইরাসকে খুঁজে বের করে তাকে সম্পূর্ণ ধ্বংস করা সম্ভব। তার মতে, কোভিড চিকিৎসার ক্ষেত্রে এই থেরাপি যুগান্তকারী পরিবর্তন এনে দিতে পারে। তিনি বলেন, এটি অনেকটা জেনে সাইলেন্সিং থেরাপির অনুকরণে তৈরি। যা নব্বইয়ের দশকে অস্ট্রেলিয়ায় আবিষ্কৃত হয় শ্বসন সংক্রান্ত রোগের চিকিৎসা হিসেবে। এই রোগের চিকিৎসা হিসেবে জেনে সাইলেন্সিং আরএনএর ব্যবহার করে।

কিভাবে ভাইরাসকে ধ্বংস করে এই টেকনোলজিঃ ম্যাকমিলান বলেন, এই অত্যাধুনিক টেকনোলজি আরএনএর সঙ্গে কাজ করে। যা ভাইরাসের জিনের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে তার কাজ করা বন্ধ করে দেয় এবং অবশেষে তাকে ধ্বংস করে। তিনি আরো জনান, এমনিতে রেমডেসিভির-এর মত ওষুধগুলি করোনা রোগীর সুস্থতায় সাহায্য করে ঠিকই। কিন্তু এই টেকনোলজি ভাইরাসকে সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস করতে সক্ষম।

এই ওষুধকে ন্যানো পার্টিকেলের মাধ্যমে ইঞ্জেক্ট করে রক্ত প্রবাহের সঙ্গে মিশিয়ে দেওয়া হয়। তারপর তা নিজে থেকেই ফুসফুসে গিয়ে আরএনএ তৈরি করা কোষের সঙ্গে মিলিত হয়। এরপর আর এন এর মাধ্যমে ভাইরাসের জিনের সঙ্গে মিশে গিয়ে তাকে নষ্ট করতে শুরু করে। যার ফলে ভাইরাস ক্লোন তৈরি করতে পারেনা।

Check Also

মুখের গন্ধ দূর করার সাথে ১০ অসুখ ভালো হবে পান খেলে

পান পাতায় উপস্থিত একাধিক উপাদান নানাবিধ রোগের প্রকোপ হ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। কিন্তু …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *