Breaking News
Home / Health / ভুল করেও এই দিকে মাথা দিয়ে শোবেন না, নিঃস্ব হয়ে যাবেন

ভুল করেও এই দিকে মাথা দিয়ে শোবেন না, নিঃস্ব হয়ে যাবেন

আপনার ঘুমানোর ভঙ্গি প্রভাব ‘ফেলতে পারে আ’পনার জীবনে’।বলা হয়ে থাকে যে ঘুমের সময় যদি আপনার মাথা এবং পা ভুল দিকে থাকে তবে আপনার জীব’নে অনেক সমস্যা রয়েছে এবং ‘আপনি আ’পনার ক্যারিয়ারে অগ্রগতি করতে সক্ষম নন। সুতরাং ঘুমের সময় আপ’নার মাথা এবং পা কেবল সঠিক দিকে রাখা খুবই গুরত্বপূর্ণ। কিভাবে ঘুমানো উচিত আর কিভাবে ঘুমানো উচিত নয়, এবার আসা যাক সেই আলোচনায়।

পূর্ব কিংবা দক্ষিণ দিকে মাথা রেখে সকলের ঘুমানো উচিত। অর্থাৎ বিছানায় এমন ভাবে শুতে হবে যাতে আপনার মাথা হয় পূর্ব নয়ত দক্ষিণ দিকে থাকে। কারণ উত্তর বা পশ্চিম দিকটি ঘুমের জন্য সঠিক বলে বিবেচিত হয় না। বাস্তু শাস্ত্রের মতে আপনি যদি পূর্ব দিকে মুখ করে মাথা রেখে ঘুমান তবে,আপনার মন আরও উজ্জ্বল হবে এবং আপনাকে আরও বেশি বুদ্ধিমান করে তুলবে।

দক্ষিণ দিকের দিকে মাথা রেখে ঘুমানোও বেশ ভালো হিসাবে বিবেচিত হয়। বলা হয় যে যারা এই দিকের দিকে মাথা রেখে ঘুমায় তাদের আয়ু বেড়ে যায় এবং তারা জীবনে অনেক অগ্রগতি লাভ করে। এই দিকটি ঘুমের জন্য খুবই উপযুক্ত।যারা পশ্চিম দিকের’ দিকে মাথা রেখে’ ঘুমায় তারা’ ‘তাদের জীবনে প্রচুর অনা’কাঙ্ক্ষিত স্ট্রে’সের মুখোমুখি হন।

ঘুমের সময়ও তা’দের মন শান্ত’ হয় না। ‘যার কারণে তারা সারাদিন যে ‘কোনো বিষয়ে বিরক্তি বোধ করেন।উত্তর দিকে মাথা করে যে সমস্ত ব্য’ক্তি ঘুমা’ন তারা জীবনে অনেক ধরণের ক্ষতির মুখোমুখি হয় এবং এই দিকে ঘুমালে তাদের জীবনকাল হ্রাস পায়। সুতরাং আপনি যদি এই দি’কটির দিকে মাথা রেখে ঘুমান তবে অবিলম্বে আপনার দিকটি পরিবর্তন করুন এবং কেবল সঠিক দিকে ঘুমান।

ঘুমের দিক ছাড়াও আপনি কী ধরণের বিছানায় ঘুমান তা আপনার জীবনকেও প্রভাবিত করে। সুশ্রুত সংহিতার মতে বাঁশ বা পলাশ কাঠের তৈরি বিছানায় ঘুমানো উচিত নয়। এই দুই প্রকার গাছের কাঠ দিয়ে তৈরি খাট না কেনাই ভালো।সুশ্রুত সংহিতা আয়ুর্বেদের তিনটি মূল গ্রন্থের মধ্যে একটি। এই গ্রন্থে কখন এবং কিসের তৈরি বিছানায় ঘুমানো উচিত সে সম্পর্কে বিবরণ দেওয়া আছে।

সুশ্রুত সংহিতার মতে, দিনের বেলা ঘুমানো ঠিক নয় এবং যারা দিনের বেলা বেশি ঘুমায় তাদের রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। সমস্ত মরসুমের মধ্যে, দিনের বেলা ঘুমানো কেবল গ্রীষ্মের মরসুমে সঠিক বলে মনে করা হয়।একইভাবে, রাত ৭ টা থেকে ৮ টার মধ্যে ঘুমানো শরীরের পক্ষে সবচেয়ে উপযোগী হিসাবে গণ্য হয় এবং সকাল ৪ টা থেকে ৫ টা অবধি টানা ঘুমানোর পর বিছানা ছেড়ে ওঠা উচিত। এই সময় গুলি ঘুমের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত।

Share

Check Also

মুখের গন্ধ দূর করার সাথে ১০ অসুখ ভালো হবে পান খেলে

পান পাতায় উপস্থিত একাধিক উপাদান নানাবিধ রোগের প্রকোপ হ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। কিন্তু …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *