Breaking News
Home / Health / কোন রক্তের গ্রুপে করোনা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি, কোন ক্ষেত্রে কম? জানাল সিএসআইআর

কোন রক্তের গ্রুপে করোনা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি, কোন ক্ষেত্রে কম? জানাল সিএসআইআর

বর্তমানে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে ক্রমাগত সংক্রমণের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এই পরিস্থিতিতে ‘দি কাউন্সিল অব সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চে’র একটি গবেষণার মাধ্যমে জানানো হয়েছে যে, যাদের রক্তের গ্রুপ ‘এবি’ এবং ‘বি’, তাঁরা অন্যান্য রক্তের গ্রুপের তুলনায় করোনায় বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন। এর পাশাপাশি এও বলা হয়েছে যে, তাদের রক্তের গ্রুপ ‘ও’ তাদের শরীরে এই ভাইরাস আক্রমণ করলেও তা কোনো প্রকার উপসর্গহীন বা হালকা উপসর্গ যুক্ত হতে পারে। তবে ‘ও’ গ্রুপের মানুষদের এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।

সিএসআইআর গোটা দেশ জুড়ে সেরো সার্ভে করে ১০ হাজারের বেশি মানুষের রক্তের নমুনা জোগাড় করে, তাতে ১৪০ জন চিকিৎসক পরীক্ষা করে দেখেছেন যে, ‘এবি’ রক্তের মানুষের করোনায় বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন, এরপর রয়েছে ‘বি’ রক্তের গ্রুপের মানুষেরা। তবে ‘ও’ রক্তের গ্রুপের মানুষের করোনায় সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা সবথেকে কম। এই গবেষণায় আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে, আইভারমেক্টিন সংক্রমণের তীব্রতা যদি কমে যায়, তাহলেই করোনা প্রতিরোধ করার ক্ষমতাও কমে আসে। এছাড়াও এই গবেষণায় বলা হয়েছে যে, যেসব মানুষেরা নিরামিষ খাওয়ার বেশি খান তাদের এই রোগ হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।

তার কারণ নিরামিষ খাওয়ারগুলি, আমিষ খাবারের তুলনায় অধিক পরিমাণে পুষ্টি গুনে ভরপুর থাকে, যা শরীরের ভিতরে যেকোনো রোগকে প্রতিরোধ করার ক্ষমতাকে বহুগুণ বাড়িয়ে তোলে। কোভিড আক্রান্ত হওয়ার পর, এই ভাইরাসের কবল থেকে রোগী মুক্তি পেলে, সম্পূর্ন সুস্থ হয়ে ওঠার ক্ষেত্রে নিরামিষ খাওয়ার-দাওয়ার ওপর অধিক গুরুত্ব দেওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকেরা। এক্ষেত্রে চিকিৎসক অশোক শর্মা এই বিষয়টি অনেকটাই জিনের ওপর নির্ভর করছে বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন। তিনি এই প্রসঙ্গে একটি উদাহরণ দিয়ে বলেন, থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত রোগীরা, ম্যালেরিয়ার ভাইরাস খুবই কম আক্রান্ত হয়ে থাকেন। ঠিক তেমনি জিনগত কারণে একটি পরিবারের একজন বাদে সকলেই কোভিড পজিটিভ হতে পারেন।

এরসঙ্গে চিকিৎসক অশোক শর্মা এও উল্লেখ করলেন যে, কোনো কোনো রক্তের গ্রুপের রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা অনেক বেশি হতেই পারে, তবে এই বিষয়ে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার প্রয়োজন রয়েছে। এই প্রসঙ্গে চিকিৎসক এসকে কারলারও একই মতামত ব্যক্ত করে জানিয়েছেন যে, “এখনই এটা বলা ঠিক হবে না ও ব্লাডগ্রুপের এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি।” কিন্তু সিএসআইআরের গবেষণা অনুযায়ী, ‘ও’ ব্লাডগ্রুপের মানুষের করোনা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে কম। তবে তাও যদি কেউ আক্রান্ত হন তাহলে হলে তা অ্যাসিম্পটমেটিক হচ্ছেন।

Check Also

মুখের গন্ধ দূর করার সাথে ১০ অসুখ ভালো হবে পান খেলে

পান পাতায় উপস্থিত একাধিক উপাদান নানাবিধ রোগের প্রকোপ হ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। কিন্তু …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *